মঙ্গলে বসতি কবে?

405

পৃথিবী ছাড়া মহাকাশের আর কোথাও মানুষের বসবাস উপযোগী পরিবেশ আছে কীনা, কয়েক দশক ধরেই তা নিয়ে চলছে বিভিন্ন ধরনের গবেষণা। অবশ্য এ প্রসঙ্গে মহাকাশ বিজ্ঞানীদের ভাষ্য, এখনো পর্যন্ত কেবলমাত্র মঙ্গল গ্রহেই প্রাণী বসবাসের অনুকূল পরিবেশ রয়েছে- এমনটিই ধারণা করছেন তারা।
আর এই ধারণাটিকে বাস্তবায়নের লক্ষ্যে কাজ করছে মার্কিন প্রতিষ্ঠান স্পেসএক্স। এলন মাস্ক এই স্পেসএক্স এর প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা। গত বছরের শেষেরদিকে এলন মাস্ক জানিয়েছিলেন, আগামী কয়েক বছরের মধ্যেই মঙ্গল গ্রহকে পৃথিবীর মানুষের জন্য বসবাসযোগ্য করে তোলার পাশাপাশি সেখানে বাণিজ্যিকভাবে মানুষ পাঠানোর পরিকল্পনা নিয়ে কাজ করছেন তারা। তবে এর পরপরই তাদের প্রতিষ্ঠানের পরীক্ষামূলক রকেটটি উৎক্ষেপণের সময় বিস্ফোরিত হওয়ায় সে পরিকল্পনাটি থমকে যায়।
সম্প্রতি আবারও স্পেসএক্স তাদের মঙ্গল প্রকল্প নিয়ে গণমাধ্যমের সামনে এসেছে। এলন মাস্ক মঙ্গল যাত্রা নিয়ে নতুন একটি রূপরেখা প্রকাশ করেছেন। এই রূপরেখায় নতুন রকেট তৈরির কথাও উল্লেখ করেছেন তিনি।
পাশাপাশি টুইটারে দেওয়া এক বার্তায় জানিয়েছেন, শিগগিরই তারা নতুন একটি রকেট তৈরি করতে যাচ্ছেন। এ রকেটে গতবারের সব ধরনের ত্রুটি শুধরে নেওয়া হবে।
গণমাধ্যমে দেওয়া এক সাক্ষাৎকারে এলন মাস্ক জানিয়েছেন, মঙ্গলকে বাসযোগ্য করে তুলতে জ্বালানি ও বাতাস তৈরি করা হবে। আর এর জন্য মহাকাশযানের বিশাল জ্বালানি ট্যাঙ্ক এর কথাও উল্লেখ করেন তিনি। পাশাপাশি, তাদের এই ট্যাঙ্কটি যে সব ধরনের নিরাপত্তা পরীক্ষায় উত্তীর্ণ হয়েছে তাও এই সাক্ষাতকারে জানান।
সম্প্রতি স্পেসএক্স মহাকাশযানের ক্ষেত্রে পুনর্ব্যবহারযোগ্য প্রযুক্তি
উদ্ভাবনে সফল হয়েছে। এরফলে প্রায় ১০০ কোটি ডলার সাশ্রয় হবে বলেও জানা গেছে। সবকিছুই গুছিয়ে এনেছে তারা। কিন্তু মঙ্গল যাত্রা কবে? এ প্রসঙ্গে প্রতিষ্ঠানটির নির্বাহী প্রধানের ভাষ্য, সবকিছু ঠিক থাকলে ২০১৮ সালেই তাদের সবচেয়ে শক্তিশালী মহাকাশযানটির পরীক্ষামূলক উৎক্ষেপণ করা হবে। কাজেই মঙ্গলে মানুষের বসতি শুরুর বোধহয় আর খুব বেশি দেরি নেই।
সূত্র: বিজনেস ইনসাইডার

You might also like More from author

Leave A Reply

Your email address will not be published.